https://www.a1news24.com
২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৯:১৬

জকিগঞ্জে অনুষ্ঠিত হলো এসএসসি-দাখিল উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ২০২৪

জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ্ব লোকমান উদ্দিন চৌধুরী বলেন, “এসএসসি/দাখিল উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থী একেকজন একেকটি ফুল। আমাদের স্বপ্ন। এই অর্জন তোমাদেরকে শুধু জকিগঞ্জের নয়, বরং সমগ্র বাংলাদেশের ফুল বানিয়ে নিয়েছে। তোমরাই আগামীর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার নেতৃত্ব দেবে। তোমাদের হাত ধরেই আমরা দেশ ও জাতিকে এগিয়ে নেবো। এইক্ষেত্রে শিক্ষক, অভিভাবকসহ শিক্ষার্থীদের সাফল্যের পেছনে অবদান রাখা সকলের প্রতি রইলো আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।”

তিনি গতকাল সোমবার, ১০ জুন, সকাল ১১ ঘটিকায় জকিগঞ্জের সোনার বাংলা অডিটোরিয়ামে উইমেন্স মডেল কলেজ, সিলেট কর্তৃক আয়োজিত এসএসসি/দাখিল উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ২০২৪ অনুষ্ঠানে উক্ত কথাগুলো বলেন।

উইমেন্স মডেল কলেজের প্রভাষক জনাব হেলাল হামামের সঞ্চালনায় এবং ইএসডি ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মনসুর আহমদ লস্করের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য জনাব ইফজাল আহমদ চৌধুরী। তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে রাখা তাঁর বক্তব্যে বলেন, “শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য কিন্তু সার্টিফিকেট অর্জন বা চাকরি পাওয়া নয়। রবীন্দ্রনাথের সূত্র ধরে বলতে চাই, শিক্ষার মূলমন্ত্র হলো মনুষ্যত্বের বিকাশ। শিক্ষাই আমাদের মানুষ বানায়। আমরা মানবিক মানুষ না হলে দেশ ও জাতির অগ্রযাত্রায় কোনও ভূমিকা থাকবে না।”

বিশেষ অতিথি হিসাবে এছাড়া বক্তব্য রাখেন জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান জনাব মাওলানা মোঃ আব্দুস সবুর। “বর্তমান বিশ্বায়নের এই যুগে শিক্ষিতদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও, শিক্ষার গুণগত মান ও সামাজিক মূল্যবোধের উন্নতি হচ্ছে না। তাই, সমাজের সবখানে কেবল অবক্ষয় আর বিশৃঙ্খলা। হারিয়ে যাচ্ছে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ ও মায়া-মমতা। এই সংকটে আমরা আজ প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে সম্মিলিত প্রয়াসে এগিয়ে যাই।”

বিশেষ আলোচকের বক্তব্যে উইমেন্স মডেল কলেজের অধ্যক্ষ জনাব আব্দুল ওয়াদুদ তাপাদার শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, “এসএসসি/দাখিল উত্তীর্ণ হয়ে সঠিক দিকনির্দেশনার অভাবে অনেক মেধাবী শিক্ষার্থীর স্বপ্ন অপূর্ণই থেকে যায়৷ তাই এই সময়টাতে খুব মনযোগ দিয়ে, যৌক্তিকভাবে প্রতিটা সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। বিশেষ করে কলেজ নির্বাচন ও গ্রুপ নির্ধারণ। একটি ভুল সিদ্ধান্ত যাতে তোমাকে শিক্ষার এই রেস থেকে বিচ্যুত না করে।”

“সন্তানের জন্য আরও কিছুদিন সেক্রিফাইস করে যান। দেখবেন, তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে আপনার ভাবনা উড়ে যাবে। একটি শিক্ষিত মেয়ে শুধু তাকে না বরং তার সমগ্র পরিবারের সম্পদ। এজন্য আপনাদের উচিত সন্তানের শিক্ষাজীবনের সিদ্ধান্তগুলো ইমোশন দিয়ে না দেখে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে দেখা। তাদের জন্য অন্তত ইন্টারমেডিয়েট পর্যন্ত আপনার ত্যাগকে ধরে রাখা।“ অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে তিনি এই কথাগুলো বলেন।

অতিথি হিসাবে আরও উপস্থিত ছিলেন- সাজ্জাদ মজুমদার বিদ্যানিকেতনের প্রধান শিক্ষক ও জেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি, সিলেটের সভাপতি জনাব মোঃ কুতুব উদ্দিন এবং গণিপুর কামালগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও জকিগঞ্জ মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি জনাব মোঃ আজির উদ্দিন। কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন জকিগঞ্জ উপজেলার স্বনামধন্য বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষক, সাংবাদিক, সমাজসেবীসহ বরেণ্য ব্যক্তিবর্গ। তাদের মধ্যে উল্লেখ্য: জুবেদ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) জনাব মোঃ আব্দুছ ছত্তার, মৌলভী ছাইর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব মোঃ শাব্বির আহমদ, লুৎফুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের প্রধান শিক্ষক জনাব ছালিক আহমদ চৌধুরী, ইমদাদ মজুমদার বিদ্যানিকেতনের প্রধান শিক্ষক জনাব অনুকুল চন্দ্র দাস, বারহাল এহিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব জায়েদ আহমদ, মাহমুদুর রহমান মজুমদার বিদ্যানিকেতনের প্রধান শিক্ষক জনাব বিকাশ চন্দ্র, জকিগঞ্জ গার্লস হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক জনাব মোঃ ফেরদৌস আলম, হাফিজ মজুমদার বিদ্যানিকেতনের প্রধান শিক্ষক জনাব মোঃ আতিয়ার রহমান, জকিগঞ্জ মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সেক্রেটারি ও ওয়াজেদ আলী মজুমদার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জনাব মহিউদ্দিন হায়দার, ইছামতি (ক) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহ-সভাপতি জনাব আব্দুল করিম, হাজি আব্দুল আজিজ তাপাদার একাডেমির সদস্য জনাব মস্তাক আহমদ, বিশিষ্ট সাংবাদিক জনাব হানিফ উদ্দীন সুমন, জকিগঞ্জ স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহমদ ফারহান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন উইমেন্স মডেল কলেজের স্কুল শাখার সহকারী শিক্ষক জনাব মামুনুর রশীদ। এরপর স্বাগত বক্তব্য রাখেন উইমেন্স মডেল কলেজের চিফ একাডেমিক কোওর্ডিনেটর ও সিনিয়র প্রভাষক জনাব জাকিয়া সুলতানা। সংবর্ধিত শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে অনুভূতি প্রকাশ করেন ইছামতী উচ্চ বিদ্যালয়ের কৃতী উর্মিলা আক্তার জনি এবং ফুলতলী মডেল মাদ্রাসার কৃতী ছাইদুর রহমান। অনুষ্ঠানটি দুটি পর্বে বিভক্ত ছিল। প্রথম পর্বে আলোচনা সভা ও অতিথিদের সম্মাননা স্মারক প্রদান। দ্বিতীয় পর্বে এসএসসি/দাখিল উত্তীর্ণ কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনাস্বরূপ ক্রেস্ট প্রদান এবং জকিগঞ্জের বিভিন্ন স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষককে সম্মাননা স্মারক প্রদান।

উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভাপতি জনাব মনসুর আহমেদ লস্কর আয়োজনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি টানেন৷ পুরো আয়োজনে সার্বিকভাবে সহযোগিতায় ছিলেন জকিগঞ্জ স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের দায়িত্বশীলগণ। সবশেষে আগত অতিথি, সংবর্ধিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবককে বিশেষ আপ্যায়নের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে।

আরো..